বাংলাদেশের ইতিহাসের সব থেকে বড় একটি ঘটনার হলো ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগষ্ট। আর সেই দিনই বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতিকে একেবারে চীরদিনের জন্য স্তব্দ্ধ করে দেয় এই দেশেরই কিছু মানুষ। অবিশ্বাস্য সেই ঘটনাটা সেদিন অনেকের বিশ্বাস করতে কষ্ট হলেও আততে তাই ঘটেছিল। আর সেই ঘটনার সাথে প্রতক্ষ্য এবং পরোক্ষ ভাবে জড়িত ছিল বেশ কিছু মানুষ।সূর্যের ধরণীতলে বঙ্গবন্ধু হ’/ত্যা’/র অবিশ্বাস্য খবরে বি’/শ্বা’/স’/ঘা’/ত’/ক’/দে’/র প্রথম যে ব্যক্তিটির মুখোশের অন্তরাল থেকে জনসম্মুখে হাজির হন, তিনি খন্দকার মোশতাক আহমেদ। হিমালয়সম মহীরূহকে হ’/ত্যা’/র পর রাষ্ট্রপতির পদে সমাসীন হন খন্দকার মোশতাক। তার রাজনৈতিক জীবনের শুরু এবং শেষ দুটোই ঘটনাবহুল। মোশতাক কতটা চাটুকারিতার আশ্রয় নিয়েছিলেন তা তার কয়েকটি ঘটনার দিকে চোখ রাখলে বোঝা যাবে। বঙ্গবন্ধু তার শাসনামলেই নিজের বাবা-মাকে হারান।

মোশতাক তখন মন্ত্রী। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় ক’/ব’/র দেয়া হয় বঙ্গবন্ধুর মা-বাবাকে। বঙ্গবন্ধুর বাবা মৌলভী লুৎফর রহমানের মৃ’/ত্যু’/তে গভীর শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়েছিলেন মোশতাক। মোশতাক নিজে ক’/ব’/রে নেমে পড়েছিলেন লা’/শ শায়িত করতে। বঙ্গবন্ধুর মা সায়রা খাতুনের মৃ’/ত্যু’/তে মাটিতে গড়াগড়ি করে কান্নায় চোখমুখ ভাসিয়ে ফেলেন মোশতাক। সংবাদপত্রে যা খবর হয়ে উঠেছিল।

১৯৭৫ সালের ১৫ জুলাই শেখ কামালের বিয়েতেও বিশিষ্ট ভুমিকায় অবতীর্ণ ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী মোশতাক। তিনি শেখ কামালের উকিল বাপের আসন অলংকৃত করেন। একবার খন্দকার মোশতাক বঙ্গবন্ধুকে একটা সোনার বটগাছ উপহার দিয়ে বলেন, "মুজিব তুমি সত্যিকার অর্থেই বাংলার বটবৃক্ষ’, আমরা হলাম ডালপালা মাত্র।"

১৯৭৫ সালের ১৪ আগস্ট বাসায় রান্না করা হাঁসের মাংশ নিয়ে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে যান মোশতাক। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে কথপোকথনকালে শেখ রাসেলের আগমন ঘটে। মোশতাক শিশু রাসেলকে আদর করে মাথায় চুমো খেলেন। এরপর নিজের টুপিটা খুলে রাসেলের মাথায় পরিয়ে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। মোশতাক বললেন, ’দ্যাখো ওকে কেমন মানিয়েছে।’ সন্ধ্যার পর পরই মোশতাক তার আগামসীহ লেনের বাড়িতে চলে যান। সেই মোশতাক রাতটা দিনে গড়াতেই কী কাণ্ডটা না ঘটালেন! শুধু কী কাণ্ড? না, সে-তো বিশ্বাসঘাতকতামূলক এক মহাকাণ্ড- মহা হ’/ত্যা’/য’/জ্ঞ।

পূর্বপরিকল্পনা মতো রাষ্ট্রপতি হলেন মোশতাক। নিহত বঙ্গবন্ধুর লা’/শ’/টা সিঁড়িতে পড়ে আছে তখনো। বাড়িশুদ্ধ লা’/শ আর লা’/শ। সেই শুক্রবারই খুনীবেষ্টিত হয়ে বায়তুল মোকাররম মসজিদে জুম্মার নামায আদায় করলেন - তারপর খু’/নী’/দে’/র হাতে মিষ্টিমুখ করলেন, সমবেত মুসুল্লিদেরও মিষ্টিমুখ করালেন। মুসল্লিরা বিস্মিত ভী’/ত’/স’/ন্ত্র’/স্ত মনে দেখলো বঙ্গবন্ধুরই বাণিজ্যমন্ত্রী মোশতাক রাষ্ট্রপতি। খন্দকার মোশতাক রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর রাসেলের মাথার ওপর চাপানো তার গাঢ় ছাই রঙের কিস্তি টুপিটাকে জাতীয় টুপি হিসাবে ঘোষণা করে দিলেন। বললেন, সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের এ টুপি পরিধান করতে হবে।সব মন্ত্রিরা সম্মতি দিলেন। যারা বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভারই সদস্য ছিলেন। সেই প্রস্তাব পাস করা হলো এই বলে যে, জাতীয় সঙ্গীত, জাতীয় ফুল, জাতীয় ফল, জাতীয় পাখির মতো একটা জাতীয় টুপিও থাকা দরকার।

মোশতাক অতিশয় ভাগ্যবান ছিলেন। জীবনে বারবার বিশ্বা’/স’/ঘা’/ত’/কতা করেও পার পেয়ে যান বঙ্গবন্ধুর মহানুভবতায়। বঙ্গবন্ধুর আ’/ত্ম’/জী’/ব’/নী’/তে’/ও মোশতাকের প্রতি পরম ভালবাসা প্রকাশ পেয়েছে। বঙ্গবন্ধু রাজনীতির প্রথম দিকের ভূমিকা ভুলে গিয়ে মোশতাককে বন্ধু ভেবে বুকে স্থান দিয়েছিলেন।

১৯৪৯ সালের ২৩ জুন আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠিত হলে কারারুদ্ধ শেখ মুজিবুর রহমানের পাশাপাশি খন্দকার মোশতাক আহমেদও যুগ্ম সম্পাদক হয়েছিলেন। কিন্তু ওই বছরের ১১ অক্টোবর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াবজাদা লিয়াকত আলী খানের আগমন উপলক্ষে ’গভর্নর হাউজ’ ঘেরাও কর্মসূচি ঘোষণা করে আওয়ামী মুসলিম লীগ। কর্মসূচি চলাকালীন গ্রেপ্তার হন দলের সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক এবং পরে শেখ মুজিব। ভয়ে পত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে দল ত্যাগ করেন অন্যতম সহ-সভাপতি ঢাকা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন, আলী আমজাদ খান ও সহ-যুগ্ম সম্পাদক এ কে রফিকুল হোসেন। যুগ্ম সম্পাদক মোশতাক রাজনীতির পাট চুকিয়ে আইন ব্যবসায় শামিল হন সিনিয়র সহসভাপতি আতাউর রহমান খানের সঙ্গে। ৫০ সালে কারামুক্ত শেখ মুজিব আওয়ামী মুসলিম লীগের অফিস খুলে বসেন নবাবপুরে। ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসাবে শেখ মুজিব দলীয় কার্যক্রম শুরু করলেও মোশতাকের হদিস ছিল না। ফলে ’৫৩ সালের প্রথম কাউন্সিলে নির্বাচিত কমিটিতে তার ঠাঁই হয়নি।’ ৫৪ সালের মার্চের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনেও আওয়ামী লীগের মনোনয়নলাভে ব্যর্থ হন মোশতাক। শহীদ সোহরাওয়ার্দীর বিশেষ অনুকম্পায় তাকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে বিজয়ী করে আনা হয়। আওয়ামী লীগও তাকে ফিরিয়ে নেয়। আওয়ামী মুসলিম লীগ যুক্তফ্রন্ট থেকে বেরিয়ে এলেও গভর্নর শেরেবাংলার দলে গা ভাসান এবং চীফ হুইপ হন। ৫৫ সালে দল অসাম্প্রদায়িক নীতিগ্রহণ করে নাম থেকে "মুসলিম" শব্দ কর্তন করলে মোশতাক আব্দুস সালাম খানের সঙ্গে হাত মেলান এবং আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে দল টিকিয়ে রাখেন। তারা বহিষ্কারও হন। পরে মোশতাক আওয়ামী লীগে ফিরে আসেন। ১৯৭১ সালে মুজিব নগর সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোশতাক পাকিস্তানের সঙ্গে কনফেডারেশন গঠনের চক্রান্তের দায়ে অভিযুক্ত হন। হারান মন্ত্রীত্ব। আর সেই মধুর প্রতিশোধ নেন ৭৫ সালের ৩ নভেম্বর জাতীয় চারনেতাকে হ’/ত্যা করে। রাষ্ট্রপতির ভাষণে মোশতাক বঙ্গবন্ধুর খু’/নী’/দে’/র ’দেশের সূর্য সৈনিক’ হিসাবে অভিহিত করেন।

আওয়ামী লীগ একুশ বছর পর ৯৬ সালে ক্ষমতায় ফিরে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার কার্য শুরু করে। কিন্তু মাত্র কদিন আগে ৯৬ সালের ৫ মার্চ মোশতাক মা’/রা যান। মৃ’/ত্যু’/র পর পুলিশ পাহারায় বায়তুল মোকাররম মসজিদ প্রাঙ্গণে মোশতাকের নামাজে জানাজা হওয়ার কথা থাকলেও বিক্ষোভের মুখে তা সম্ভব হয়নি। কুমিল্লার দাউদকান্দির দশপাড়ায় পারিবারিক ক’/ব’/র’/স্থা’/নে মোশতাককে দা’/ফ’/ন করা হয়। সব ক’/ব’/রে রয়েছে নামফলক। কিন্তু নেই কেবল মোশতাকের ক’/ব’/রে।

ইতিহাসের জঘন্য বি’/শ্বা’/স’/ঘা’/ত’/ক খন্দকার মোশতাকের একমাত্র ছেলে ইশতিয়াক আহমেদ যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। দুই মেয়ে শিরিন সুলতানা ও ডা. নাজনীন সুলতানা থাকেন যুক্তরাজ্যে। তারা গত এক দশক ধরে জনরোষের আতঙ্কে বাড়িতে আসছেন না। পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে সীমানা প্রাচীর দিয়ে ঘেরা বাবার দোতলা বাড়িটি।

শুধু খন্দকর মোশতাক নয়। বঙ্গবন্ধুর ঘটনার সাথে সকল দোষীরাই এখন রয়েছে গা ঢাকা দিয়ে। এর মধ্যে অনেককে ধরে দেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ শাস্তি। আর ৫ জন এখনো রয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পলাতক। আর তাদের ধরতে এখনো বেশ সোচ্চার রয়েছেন দেশের সরকার। যার প্রতিফলন দেখা গেছে ক্যাপ্টেন মাজেদের ঘটনায়। দীর্ঘদিন ধরেই পলাতক থাকলেও কোলকাতা থেকে তাকে খুজে এনে তার আগে থেকে ঘোষনা করা রায় কার্যকর করে সরকার। এবং বাকিদের ধরতেও আন্তর্জাতিক ভাবে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

আরো পড়ুন

আনুশককার ঘটনায় শেষ পর্যন্ত সত্যটা প্রকাশ পেল

16 January, 2021 | Hits:2189

গেল বেশ কিছু দিন ধরে বাংলাদেশের টক অব দ্যা টাউন হয়ে হয়ে আছে রাজধানীর কলাবাগানের একটি ঘটনা। সেই ঘটনার মূল কেন্দ্রবিন্দুত...

শেষ পর্যন্ত টিকলোই না সেই আলোচিত প্রবাসীর সংসার

17 January, 2021 | Hits:1853

বেশ কিছু দিন আগে বাংলাদেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে যায় একটি ঘটনার রেশ। জানা যায় নিজের স্বামী প্রবাসে থাকার সুযোগ নিয়ে স্ত্রী...

হাইকমান্ড থেকে কি বলা হয়েছে কাদের মির্জাকে জানিয়ে দিলেন প্রকাশ্যে

16 January, 2021 | Hits:909

চলছে নোয়াখালীর পৌরসভা নির্বাচন। আর এবারের নির্বাচনে সব টুকু আলো যিনি কেড়ে নিয়েছেন তিনি হলেন বাংলাদেশের সড়ক ও যোগাযোগ মন্...

নৌকার চেয়ে ৮ গুণ বেশি ভোট পেয়ে জয়ী ধানের শীষের প্রার্থী

16 January, 2021 | Hits:741

হবিগঞ্জের মাধবপুরে ঘটে গেছে অবাক করা একটি ঘটনা। আর তা হলো আজকের পৌরসভার নির্বাচনের ফলাফল। জানা গেছে বিএনপির প্রার্থীর কা...

একমাত্র মেয়েকে হারিয়ে কেমন করে দিন কাটাচ্ছেন আনুশকার মা-বাবা

17 January, 2021 | Hits:357

বাংলাদেশের রাজধানীতে ঘটে গেছে বড় ধরনের একটি ঘটনা। যে ঘটনাটি সারা দেশে সাড়া ফেলে দেয় একেবারেই। কলাবাগানের ঘটনার সাথে জড়িত...

কাঁদতে কাঁদতে সোহেল রানা বললেন, অনেক আশা করে এসেছিলাম

17 January, 2021 | Hits:354

প্রতি বছর চলচিত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য সরকারের তরফ থেকে দেয়া হয়ে থাকে জাতীয় পুরষ্কার। আর এই জাতীয় পুরষ্কার প্রতি বছর ...